Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ১৩ এপ্রিল ২০২১ ||  চৈত্র ৩০ ১৪২৭ ||  ২৯ শা'বান ১৪৪২

মিয়ানমারে দমন-পীড়ন অব্যাহত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৩:৩০, ৩ মার্চ ২০২১   আপডেট: ১৩:৩২, ৩ মার্চ ২০২১
মিয়ানমারে দমন-পীড়ন অব্যাহত

মাসব্যাপী সংকট বন্ধে আসিয়ানের পক্ষ থেকে কূটনৈতিক চাপ দেওয়ার একদিন পরই মিয়ানমারের পুলিশ বিক্ষোভ দমনে আরও চড়াও হয়েছে।

বুধবার (৩ মার্চ) মিয়ানমারের দুটি বৃহত্তম শহরে নিরাপত্তা বাহিনীকে ফাঁকা গুলি ছুড়েছে এবং টিয়ার গ্যাস ব্যবহার করতে দেখা যায়।

রয়টার্স জানায়, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার প্রতিবেশী দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা সংযমের অনুরোধ জানালেও, কারারুদ্ধ নেতা অং সান সু চিকে মুক্তি দিতে এবং গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে সেনাবাহিনীকে আহ্বান জানালেও মূলত প্রচেষ্টাটি ব্যর্থ হয়েছে।

একটি লাইভ ভিডিওতে দেখা যায় শিক্ষকের ইউনিফর্ম পরিহিত এক নারীকে চিৎকার করে বলতে শোনা যাচ্ছে, ‘ওহ আমার চোখ গেলো’। টিয়ার গ্যাসের কারণে অন্যান্য প্রতিবাদকারীদের ছড়িয়ে ছিটিয়ে যেতে দেখা যায়। 

এদিকে, সু চি সরকারের পতনের প্রতিবাদে দেশজুড়ে বিক্ষোভ-সমাবেশ এবং আন্তর্জাতিক নিন্দা অব্যাহত রয়েছে।
চিন রাজ্যের একজন কর্মী বলেছিলেন, প্রায় সব জনপদে ধর্মঘট চলছে। 

পশ্চিমাঞ্চলীয় রাজ্য থেকে আসা সালাই লিয়ান রয়টার্সকে বলেছেন, ‘আমরা লক্ষ্য করে দেখছি যে, এদেশের কেউই স্বৈরশাসন চায় না’।

এদিকে, নির্বাচিত সরকারকে হটিয়ে ক্ষমতা দখলকারী মিয়ানমারের জান্তা সরকার আরও বেশি আন্তর্জাতিক চাপের মুখে পড়তে যাচ্ছে। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশটির পরিস্থিতি নিয়ে আবার বৈঠকে বসতে যাচ্ছে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ। আগামী শুক্রবার এ বৈঠক আহ্বান করেছে যুক্তরাজ্য। এএফপির খবরে বলা হয়েছে, বিক্ষোভকারীদের ওপর নিরাপত্তা বাহিনীর দমন–পীড়ন জোরদার হতে থাকায় নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকের আহ্বান করা হয়েছে বলে এক কূটনৈতিক সূত্র জানিয়েছ।

উল্লেখ্য, ১ ফেব্রুয়ারি সামরিক অভ্যুত্থানের পর থেকে মিয়ানমারে সহিংসতায় এ পর্যন্ত কমপক্ষে ২১ জন নিহত হয়েছে। 

মুকুল/সাইফ

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়

শিরোনাম

Bulletলকডাউন: ১৪-২১ এপ্রিল। যা যা চলবে: ১. বিমান, সমুদ্র, নৌ ও স্থল বন্দর এবং তৎসংশ্লিষ্ট অফিস। ২. পণ্য পরিবহন, উৎপাদন ব্যবস্থা ও জরুরি সেবাদানের ক্ষেত্রে এ আদেশ প্রযোজ্য হবে না ৩. শিল্প-কারখানা ৪. আইনশৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিসেবা, যেমন, কৃষি উপকরণ (সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি), খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহন, ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, কোভিড-১৯ টিকা প্রদান, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস/জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরগুলোর (স্থল, নদী ও সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট (সরকারি-বেসরকারি), গণমাধ্যম (প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া), বেসরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ডাক সেবাসহ অন্যান্য জরুরি ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিসসমূহ, তাদের কর্মচারী ও যানবাহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতা বর্হিভূত থাকবে। ৫. ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ক্রয়, চিকিৎসা সেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার ৬. খাবারের দোকান ও হোটেল-রেস্তোরাঁয় দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা এবং রাত ১২টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত কেবল খাদ্য বিক্রয়/সরবরাহ করা যাবে। ৭. কাঁচাবাজার এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সকাল ৯টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে || যা যা বন্ধ থাকবে: ১. সব সরকারি, আধাসরকারি, সায়ত্ত্বশাসিত ও বেসরকারি অফিস, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে ২. সব ধরনের পরিবহন (সড়ক, নৌ, অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট) বন্ধ থাকবে ৩. শপিংমলসহ অন্যান্য দোকান বন্ধ থাকবে