ঢাকা     শুক্রবার   ১৯ আগস্ট ২০২২ ||  ভাদ্র ৪ ১৪২৯ ||  ১৯ মহরম ১৪৪৪

বাণিজ্য মেলায় দর্শনার্থীদের প্রিয় স্থান বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়ন

নাজমুল ইসলাম ফারুক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:৪০, ৩ জানুয়ারি ২০২২   আপডেট: ২০:১৯, ৩ জানুয়ারি ২০২২

ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা চলছে পূর্বাচলের বাংলাদেশ-চায়না ফ্রেন্ডশিপ এক্সিবিশন সেন্টারে। মেলায় মূল ভবনের মাঝের ফটক দিয়ে ঢুকলে প্রথমেই দেখা যায় বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়ন। এ প্যাভিলিয়নে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম, রাজনৈতিক ইতিহাস এবং স্বাধীনতার ইতিহাস বিভিন্ন আলোকচিত্র ও তথ্যচিত্রের মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে। প্যাভিলিয়নটি দর্শনার্থীদের কাছে প্রিয় স্থান হয়ে উঠেছে। সোমবার (৩ জানুয়ারি) বাণিজ্য মেলা ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

নারায়ণগঞ্জ থেকে স্ত্রী-সন্তানকে নিয়ে বাণিজ্য মেলায় এসেছেন তানভীর আহমেদ বাপ্পি। তিনি রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘মেলায় প্রবেশের পরপরই বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়ন দেখতে পেলাম। আমার ছেলেকে বঙ্গবন্ধুর জীবনের নানা সময়ের দুর্লভ ছবিগুলো দেখালাম। যার জন্ম না হলে বাংলাদেশের সৃষ্টি হতো না, সেই মহানায়ক সম্পর্কে পরবর্তী প্রজন্মকে জানাতে পেরে আমার খুবই ভালো লেগেছে।’

কয়েকজন বন্ধুসহ গাজীপুর থেকে মেলায় এসেছেন আলামগীর হোসেন। তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকে দেখার সৌভাগ্য আমার হয়নি। তিনি দেশের জন্য যা করে গেছেন, তা বাঙালি জাতি ভুলতে পারবে না। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ আমরা সরাসরি শুনতে না পারলেও পূর্বপুরুষরা তা শুনে গর্জে উঠেছিলেন হানাদারদের বিরুদ্ধে। এ ভাষণে উদ্বুদ্ধ হয়ে স্বাধীনতাযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছেন দেশের মানুষ, এসেছে স্বাধীনতা। বাণিজ্য মেলায় এসে ৭ মার্চের জনসভার আলোকচিত্রের সামনে দাঁড়িয়ে ছবি তুলেছি। খুব ভালো লেগেছে। এভাবে নতুন প্রজন্মের কাছে সঠিক ইতিহাস তুলে ধরার জন্য কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানাই।’

সদ্য এসএসসি পাশ করা কন্যা সায়মাকে নিয়ে আড়াইহাজার থেকে মেলায় এসেছেন আলফাজ উদ্দিন। সায়মা বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়নে বাবার সঙ্গে ঘুরে ঘুরে দেখছিলেন বঙ্গবন্ধুর দুর্লভ ছবিগুলো।

আলফাজ উদ্দিন জানান, যদি প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বঙ্গবন্ধুর দুর্লভ আলোকচিত্র দিয়ে সাজানো যেত, তাহলে নতুন প্রজন্ম খুব সহজেই এ মহান নেতা সম্পর্কে জানতে পারতেন।

এবারের বাণিজ্য মেলায় বিভিন্ন ক্যাটাগরির মোট ২৩টি প্যাভিলিয়ন, ২৭টি মিনি প্যাভিলিয়ন, ১৬২টি স্টল এবং ১৫টি ফুড স্টল দেশি-বিদেশি প্রতিষ্ঠানকে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে, যা অন্য বছরের তুলনায় অর্ধেক। মেলায় আছে ১১টি বিদেশি স্টল।

বাণিজ্য মেলা প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত চলছে। সাপ্তাহিক ছুটির দিনে রাত ১০টা পর্যন্ত মেলা চলবে। মেলায় দর্শনার্থীদের যাতায়াতের সুবিধার্থে কুড়িল বিশ্বরোড থেকে মেলা প্রাঙ্গণ পর্যন্ত বিআরটিসি বাস চলছে।

এনএফ/রফিক

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়