ঢাকা     রোববার   ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||  আশ্বিন ১২ ১৪২৭ ||  ০৯ সফর ১৪৪২

ওপেনিং ছেড়ে বাবরকে মিডল অর্ডারে খেলার পরামর্শ হাফিজের

ক্রীড়া ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:৪৮, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১৮:৪৯, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০
ওপেনিং ছেড়ে বাবরকে মিডল অর্ডারে খেলার পরামর্শ হাফিজের

পাকিস্তানি ক্রিকেটার বাবর আজম দুই ফরম্যাটে মিডল অর্ডারে ব্যাটিং করলেও টি-টোয়েন্টিতে দলের হয়ে ওপেনিং করতে নামেন। আর এই ফরম্যাটে পাকিস্তানিদের মধ্যে সবচেয়ে সফলও তিনি। ওপেনিংয়ে নেমে পঞ্চাশোর্ধ্ব গড়ে করেছেন প্রায় হাজারের কাছাকাছি রান। অথচ বাবরকে ওপেনিং ছেড়ে দিতে বলছেন আরেক পাকিস্তান ক্রিকেটার মোহাম্মদ হাফিজ। তিনি এই ধারাবাহিক ক্রিকেটারকে মিডল অর্ডারে ব্যাটিংয়ের পরামর্শ দিয়েছেন।

বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) এক টিভি অনুষ্ঠানে অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটার এমন পরামর্শ দেন বাবরকে। আসন্ন অক্টোবরে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ঘরের মাঠে তিন ম্যাচের ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে পাকিস্তান। আর সেই সিরিজে টি-টোয়েন্টিতে বাবরকে মিডল অর্ডারে দেখতে চান হাফিজ। সেই সিরিজে মুলতানে তিন ওয়ানডে খেলার পর টি-টোয়েন্টির তিন ম্যাচ খেলবে রাওয়ালপিন্ডিতে।

৩৮ বছর বয়সী হাফিজ মনে করেন, বাবর যদি মিডল অর্ডারে নেমে আসে, তবে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) চাইলে নতুন ওপেনিং জুটির খোঁজ করতে পারবে। এতে ঘরোয়া ক্রিকেটে ওপেনারদের নতুনভাবে মূল্যায়নের সুযোগ পাওয়া যাবে। অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটার বিশ্বাস করেন, জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজে ওপেনারদের নিয়ে এই পরীক্ষা চালিয়ে নিতে পারে টিম ম্যানেজমেন্ট।

মি. প্রফেসর খ্যাত হাফিজের ভাষ্যে, ‘আমি মনে করি, জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আসন্ন সিরিজে আমরা নতুন একটা ওপেনিং জুটি পরীক্ষা করে দেখতে পারি। সামনেই আমাদের জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজ, সেই সিরিজে আমরা আমাদের বেঞ্চের শক্তি পরীক্ষা করে দেখতে পারবো।’

এদিকে হাফিজ মনে করেন, জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজে সিনিয়রদের বিশ্রাম দেওয়া উচিত। সেই সময়ে দলের হাল ধরার জন্য মিডল অর্ডারে নেমে আসা উচিত বাবরের। আর এটিই পরবর্তী সময়ে ধরে রাখলে দলের উপকার হবে জানিয়ে ৯৪ টি-টোয়েন্টিতে ২১৪৭ রান করা হাফিজ বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি, বাবর ব্যাটিং অর্ডারে নিচে নেমে আসা উচিত। আর দলের ভালোর জন্য তার সেটি ধরে রাখা উচিত।’

এদিকে মিডল অর্ডারেও সফল ব্যাটসম্যান ছিলেন বাবর। তবে ওপেনিংয়ে ছিলেন বেশি সফল। ৪১ ম্যাচের মধ্যে ১৭ ইনিংসে মিডল অর্ডারে ব্যাটিং করে বাবর ৩ ফিফটি করেছিলেন। যেখানে সর্বোচ্চ ছিল ৮৬। এই সময় ৪৮ গড়ে ৫৭৭ রান নিজের উইলোতে যোগ করেছিলেন বাবর।

অপরদিকে ওপেনিংয়ে উঠে এসে ২৩ ইনিংসে পেয়েছেন ১০ ফিফটি। শতক না হাঁকালেও আছে দুইটা নব্বইর্ধ্বো ইনিংস। যেখানে সর্বোচ্চ অপরাজিত ৯৭। ওপেনিংয়ে উঠে আসা বাবর ৫১ গড়ে করেছিলেন ৯৭১ রান। এই সময় উঠে এসেছেন টি-টোয়েন্টি র‍্যাংকিংয়ের শীর্ষেও। যদিও বর্তমানে ডেভিড মালানের কাছে জায়গা হারিয়েছেন তিনি।

ঢাকা/কামরুল

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়