ঢাকা     শনিবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২৩ ||  মাঘ ১৫ ১৪২৯

তাজরীন অগ্নিকাণ্ডের দুঃসহ স্মৃতি নিয়ে আলোকচিত্র প্রদর্শনী

সাভার (ঢাকা) প্রতিনিধি  || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৯:৫৭, ২৪ নভেম্বর ২০২২   আপডেট: ১০:০১, ২৪ নভেম্বর ২০২২
তাজরীন অগ্নিকাণ্ডের দুঃসহ স্মৃতি নিয়ে আলোকচিত্র প্রদর্শনী

সাভারের আশুলিয়ায় ভয়াবহ তাজরীন অগ্নিকাণ্ডে হতাহতের ঘটনার দুঃসহ স্মৃতি বাঁচিয়ে রাখতে আলোকচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে।

বুধবার (২৩ নভেম্বর) বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত আশুলিয়ার নিশ্চিন্তপুরে তাজরীন ফ্যাশন গার্মেন্টসের প্রধান ফটকে আলোকচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করে বাংলাদেশ গার্মেন্ট শ্রমিক সংহতি সংগঠন।

প্রদর্শনীতে ২০১২ সালের ২৪ নভেম্বর দুঃসহ নানা ঘটনার পুরনো স্থিরচিত্র টানানো হয়।

এ সময় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় তাজরীন অগ্নিকান্ডে নিহত শ্রমিক শাহ আলমের মা সাহারা খাতুন, নিহত শ্রমিক মাহফুজা আক্তারের স্বামী আব্দুল জব্বার, নিহত লিপি আক্তারের মা মোছা. নসীমন, নিহত মো. আয়নালের মা জবেদা বেগম, আহত শ্রমিক নাসিমা আক্তারসহ বিভিন্ন শ্রমিক নেতারা বক্তব্য রাখেন।

বক্তব্যে নিহত শ্রমিকের স্বজন ও শ্রমিক নেতারা বলেন, আজ থেকে ১০ বছর আগে ২৪ নভেম্বর দুনিয়ার কারখানার ইতিহাসে এবং বাংলাদেশে একটি স্মরণীয় দিন তাজরীন গার্মেন্টস। এত বছর পার হয়েছে মামলায় দীর্ঘসূত্রিতা, বিচারহীনতার সংস্কৃতি এবং স্বজনপ্রীতির দোষে আজও শাস্তি হয়নি তাজরীনের দোষী মালিক দেলোয়ার হোসেনসহ অন্যান্যদের। উল্লেখযোগ্য কোন বদল হয়নি ক্ষতিপূরণের আইন। ক্ষতিগ্রস্তদের হয়নি যথাযথ পুনর্বাসন। তাই ‘মৃতদের স্মরণ করো, জীবিতদের জন্য লড়াই করো; দোষীদের শাস্তি ও ক্ষতিপূরণ আইন বদল এবং ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন চাই’ এমন দাবি করেন বক্তারা।

বাংলাদেশ গার্মেন্ট শ্রমিক সংহতির সভাপ্রধান শ্রমিকনেতা তাসলিমা আখতার বলেন, ‘বাংলাদেশের ৪০ লাখ শ্রমিকের প্রতিনিধি তাজরীনের শ্রমিকরাও। বাংলাদেশের নাম আর সব শ্রমিকের মতো তাজরীন শ্রমিকরাও সারা দুনিয়ায় পরিচিতি করেছিলো। অথচ মালিক, সরকার আর বায়ারের অবহেলা এবং অমনোযোগে প্রাণ হারায় সেই শ্রমিকরা। বিচারহীনতার ১০ বছর বলে দেয়, শ্রমিকের জীবন ও স্বপ্নের কোন মূল্য নেই সরকারের কাছে। দোষীদের শাস্তি, ক্ষতিপুরণ আইনের বদল ও ক্ষতিগ্রস্তদের যথাযথ পুর্নবাসন দাবি করছি আমরা।’

তিনি আরও বলেন, তাজরীনের আগুনে পুড়ে শ্রমিকের মৃত্যুর সেইসব দুঃসহ স্মৃতিকে এই আলোকচিত্র প্রদর্শনীর মাধ্যমে আমরা ইতিহাসে বাঁচিয়ে রাখতে চাই। কারণ এইসব স্মৃতি ইতিহাস, শক্তি ও প্রতিবাদের প্রতীক। তাই ফেলে আসা স্মৃতি থেকে শক্তি নিয়ে দোষীদের শাস্তি, ক্ষতিপূরণ আইনের বদল, ক্ষতিগ্রস্তদের যথাযথ পুনর্ববাসন জীবিত শ্রমিকদের ২৫ হাজার টাকা মজুরি করাসহ নানা দাবিতে আমরা সোচ্চার। 

উল্লেখ্য, তাজরীন দিবসে ১০ বছর পূর্তিতে রাজধানীর পরীবাগের সংস্কৃতি বিকাশ কেন্দ্রে শুরু হওয়া ১০ দিন ব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসাবে তাজরীন ভবনের সামেন এ প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়। 

এ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (২৪ নভেম্বর) তাজরীনের সামনে নিহত শ্রমিকদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে।

সাব্বির/টিপু 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়