ঢাকা     শুক্রবার   ১৯ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ৬ ১৪৩১

বরিশাল-৫ 

রাজনৈতিক মাঠে নিরবতা, ভোটের আমেজ নেই

বরিশাল সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:২৪, ১৩ ডিসেম্বর ২০২৩   আপডেট: ১৯:৩৪, ১৩ ডিসেম্বর ২০২৩
রাজনৈতিক মাঠে নিরবতা, ভোটের আমেজ নেই

স্বতন্ত্র প্রার্থী সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ ও আওয়ামী লীগ প্রার্থী কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামীম

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বরিশাল-৫ (সদর) আসনে সরকার দলীয় দুই নেতা প্রার্থী হওয়ায় ভিন্ন পরিবেশ তৈরি হয়েছে। তারা দুই জনেই দুই জনের বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনে প্রার্থিতা বাতিল চেয়ে আপিল করেছেন। এখনো রায় না পাওয়ায় কর্মী সমর্থকরা স্থবির হয়ে পড়েছেন। শহরজুড়ে নির্বাচনী কোনো আমেজ শুরু হয়নি। এখানকার রাজনীতিতে নিরবতা দেখা দিয়েছে। বলতে গেলে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। কর্মীরা অপেক্ষায় আছেন কারো প্রার্থিতা বাতিলের। 

বরিশাল জেলার ছয়টি আসনের মধ্যে নির্বাচনী আলোচনায় সবচেয়ে গুরুত্ব পাচ্ছে সদর আসন। এ আসনের সরকার দলীয় প্রার্থীরাই গুরুত্ব বাড়িয়ে দিয়েছেন। যাদের নিয়ে সদর আসন আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে পরিণত হয়েছে তাদের একজন সরকারের প্রভাবশালী সদস্য ও প্রধানমন্ত্রীর ফুফাতো ভাই মন্ত্রী আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহর ছেলে বরিশাল সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র মহানগর ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ। তিনি নৌকার টিকিট না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। আর অন্যজন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জাহিদ ফারুক শামীম। তিনি বর্তমান সংসদ সদস্য ও পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী। আসন্ন নির্বাচনে তিনি সদর আসন থেকে নৌকার টিকিটে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। আর এখান থেইে শুরু হয় বরিশাল সদর আসনে রাজনৈতিক অস্থিরতা। 

রাজনীতির মাঠে হওয়া সভা সমাবেশে চলে দুই প্রার্থীর কর্মী সমর্থকদের পালাপাল্টি বক্তব্য। এমনকি নৌকাকে হারাতে প্রকাশে মাঠে নেমে বক্তব্য রাখেন মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট একেএম জাহাঙ্গীরসহ অনেক নেতারা। শুধু তাই নয়, নৌকা প্রার্থীর বিরুদ্ধে বক্তব্য দিতে গিয়ে নির্বাচনের সুষ্ঠুতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন জাহাঙ্গীর। এ নিয়ে উত্তপ্ত হয় বরিশালের রাজনীতি।

জাহাঙ্গীরের বহিষ্কার ও মহানগর আওয়ামী লীগ কমিটি ভেঙে দেওয়ার দাবিতে আন্দোলনও করেন একাংশের নেতাকর্মীরা। তবে, সেই পরিবেশ বেশিদিন স্থায়ী হয়নি। জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে সাদিকের মনোনয়ন বাতিল চেয়ে আপিল করেন নৌকার প্রার্থী কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামীম। তবে, সেই আপিল টেকেনি রিটানিং কর্মকর্তার দপ্তরে। তাই পুনরায় আপিল করেন নির্বাচন কমিশনে। সেখানে বলা হয়, সাদিক আব্দুল্লাহ তার স্ত্রীর সম্পত্তি হলফনামায় গোপন করেছেন। তার স্ত্রীর আমেরিকায় বাড়ি আছে, এমনকি তারা স্বামী-স্ত্রী দুই জনেই আমেরিকার ভোটার। 

এবার নির্বাচন কমিশনে সাদিক আব্দুল্লাহও আপিল করেছেন জাহিদ ফারুকের বিরুদ্ধে। জাহিদ ফারুক হলফনামায় তার ও স্ত্রীর সম্পত্তির ব্যাপারে মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন বলে অভিযোগ আনা হয়। দুই জনের পাল্টাপাল্টি অভিযোগের শুনানির রায় এখনো না দেওয়ায় নিরাবতা দেখা দেয় উভয়ের কর্মী সমর্থকদের মধ্যে। আতঙ্ক বিরাজ করছে কারও মনোনয়ন বাতিল হয় কি না। কেননা বরিশাল সদরে নৌকার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামী লীগ। 

স্বতন্ত্র প্রার্থী সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহর ছেলে ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হওয়ার সুবাধে দলের একটি অংশের নেতাকর্মীরা তার সঙ্গে রয়েছেন। এক্ষেত্রে চাপে রয়েছেন নৌকার প্রার্থী। তাই দুই পক্ষই চাচ্ছে একজনের মনোনয়ন যেন বাতিল হয়। তাই কোনো পক্ষই ভোটারদের কাছে কোনো অজুহাতেই যাচ্ছেন না। ব্যবহার হচ্ছে না প্রচারণার কোনো মাধ্যম। দোকান পাটেও ভোটের চেয়ে প্রার্থীর মনোনয়ন নিয়েই আলোচনা বেশি। 

বরিশাল জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক দপ্তর বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট লস্কর নুরুল হক বলেন, কেউ কেউ হয়তো এই পরিস্থিতি অবলোকন করছেন। তবে নৌকার প্রার্থী কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামীম সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা হওয়ায় তিনি আইন মেনে চলেন। যেহেতু ১৮ ডিসেম্বরের পর ছাড়া প্রচারণায় নামা যাবে না তাই তিনি তা মেনে চলছেন। এমনকি তার কর্মী সমর্থকরাও মেনে চলছেন। কিন্তু প্রতিদিনই তার বাসায় প্রচুর মানুষ আসছেন। তাদের সঙ্গে কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামীম দেখা করছেন ও কথা বলছেন।   

মহানগর আওয়ামী লী‌গের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাসান মাহামুদ বাবু ব‌লেন, প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সের‌নিয়াবাত সা‌দিক আব্দুল্লাহ স্বতন্ত্র প্রার্থী হ‌য়ে‌ছেন। আচরণবি‌ধি সংরক্ষণ কর‌তে গি‌য়ে নেতাকর্মীরা নিরাবতা পালন কর‌ছেন। আগামী, ১৮ ডি‌সেম্ব‌রের আগে প্রচারণায় নামা যা‌বে না। ত‌বে, কেন্দ্র ও নির্বাচন পরিচালনার কাজ চল‌ছে।

আরিফুর/মাসুদ

ঘটনাপ্রবাহ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়