ঢাকা     মঙ্গলবার   ১৬ আগস্ট ২০২২ ||  ভাদ্র ১ ১৪২৯ ||  ১৬ মহরম ১৪৪৪

অস্ট্রেলিয়ার বন্যায় একজনের মৃত্যু, বাসিন্দাদের সরে যাওয়ার নির্দেশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৪:৪৫, ৪ জুলাই ২০২২   আপডেট: ১৪:৪৫, ৪ জুলাই ২০২২
অস্ট্রেলিয়ার বন্যায় একজনের মৃত্যু, বাসিন্দাদের সরে যাওয়ার নির্দেশ

অস্ট্রেলিয়ায় ভারী বর্ষণে সৃষ্ট আকস্মিক বন্যায় সিডনিতে একজনের মৃত্যু হয়েছে। পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে আশঙ্কায় হাজার হাজার মানুষকে বাড়িঘর থেকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরে যেতে বলা হয়েছে।

সোমবার (৪ জুলাই) দেশটির আবহাওয়া দপ্তর থেকে সতর্কতা জারি করে বলা হয়েছে, সিডনি উপকূলীয় এলাকায় নিম্নচাপ সৃষ্টি হয়েছে।  এর প্রভাবে তৃতীয় দিনের মতো ভাড়ি বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকতে পারে। 

বিবিসি জানায়, বন্যার পানিতে সড়ক ডুবে যাওয়ায় কয়েকটি অঞ্চলে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।  শুধু সিডনির পশ্চিমাঞ্চলের অন্তত ১৮টি এলাকা থেকে বাসিন্দাদের দ্রুত সময়ে মধ্যে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যেতে বলা হয়েছে। 

নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যের জরুরি পরিষেবা মন্ত্রী স্টেফানি কুক বলেন, ‌‌জীবননাশের হুমকি থাকায় সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

এনএসডব্লিউ প্রিমিয়ার ডমিনিক পেরোটেট সংবাদ সম্মেলনে বলেন, আমরা নিউ সাউল ওয়েলস জুড়ে ৬৪টি সরে যাওয়ার সতর্কতা এবং ৭১টি সরিয়ে নেওয়ার সতর্কতা জারি করেছি।  এই দুর্যোগের কারণে নিউ সাউথ ওয়েলসের তিন লাখ ২০ হাজার মানুষ আক্রন্ত হতে পারেন বলে আশঙ্কা করছি।'

তিনি স্থানীয় বাসিন্দাদের অপ্রয়োজনীয় কাজে ভ্রমণ করতে নিষেধ করেছেন একই সঙ্গে গণপরিবহন না ব্যবহার করতে উৎসাহ দিয়েছেন।

স্টেফানি কুক বলেন, আকস্মিক বন্যা, নদীর পানি বৃদ্ধির কারণে বন্যা এবং উপকূলীয় এলাকায় ভাঙন দেখা দেওয়ায়
এখন আমরা নানামুখী বিপদের সম্মুখীন। 

অস্ট্রেলিয়ার আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, রোববার দেশের কোথাও কোথাও ৩৫০ মিলিমিটার পর্যন্ত বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে।  যার কারণে নিপিয়ান নদীতে বন্যা হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

এদিকে গত রাতে সিডনির প্রধান বাঁধ থেকে পানি উপচে পড়তে শুরু করেছে। যা কর্তৃপক্ষের জন্য নতুন মাথাব্যাথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

স্টেফানি কুক বলেন, ‌পরিস্থিতি দ্রুত অবনতি হচ্ছে। তাই জনসাধারণকে অল্প সময়ের নোটিশে বাড়ি ঘর ছেড়ে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। 

তিনি আরো বলেন, ‌গত ২৪ ঘণ্টায় বন্যায় আটক পড়া মানুষদের উদ্ধারে ৮৩টি অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে।

সূত্র: বিবিসি, আল-জাজিরা

মাসুদ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়