Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     রোববার   ২৮ নভেম্বর ২০২১ ||  অগ্রহায়ণ ১৪ ১৪২৮ ||  ২১ রবিউস সানি ১৪৪৩

কম্পা মা তুই কোথায়, ফিরে আয় মা: বাবার আর্তনাদ

নিজস্ব প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২০:২৯, ৯ জুলাই ২০২১   আপডেট: ২১:৩১, ৯ জুলাই ২০২১
কম্পা মা তুই কোথায়, ফিরে আয় মা: বাবার আর্তনাদ

স্কুল বন্ধ। পড়ালেখার চাপ নেই। তাই ঠাকুরমা আর ভাইয়ের সঙ্গে গত ২৫ জুন নারায়ণগঞ্জে এসেছিল কম্পা রানী বর্মন (১৪)। আর আজ তার লাশ পড়ে আছে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে।

আরও পড়ুন: ‘অন্তত হাড়ের টুকরোগুলো পেলে কবর তো দিতে পারবো’

শুক্রবার (৯ জুলাই) তার লাশের জন্য অপক্ষো করছেন বাবা-মা, ভাই, চাচারা। কম্পা রানী বর্মনদের গ্রামের বাড়ি মোলভীবাজারের চাঁনপুর গ্রামে।

কম্পার মা সুমা রানী বর্মণ বলেন,‘দুই ছেলে আর তিন মেয়ের মধ্যে কম্পা তৃতীয় সন্তান। পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ে। করোনায় স্কুল বন্ধ। বাসায় থেকে কি করবে। তাই ঠাকুরমার সাথে নারায়ণগঞ্জ এসেছিল। এখানে এসে জুস কারখানার কাজে ঢুকে যায়। আর আজ মরে গেলো!

ভাই দুর্জয় জানায়,‘গত ২৫ জুন আমরা তিনজন ঢাকায় আসি। বাসা রূপগঞ্জের মাসাবো। ঠাকুরমা এক জায়গায় রান্নার কাজ করে। আমি ডিজনি সোয়েটার কোম্পানিতে আছি। আর কম্পা ওই জুসের কারখানায় কাজ নিল। বেতন ধরা হয় চার হাজার ৮০০ টাকা। ডিউটি সকাল ৮ টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত।’

দুর্জয় দুর্ঘটনা প্রসঙ্গে জানাচ্ছিলেন, ‘বিকেল ৫টার সময় আগুন লাগার খবর পাই। আমি অফিস থেকে ছুটি নিয়ে ঘটনাস্থলে চলে আসি। কম্পা কাজ করতো চার তলায়। পারলাম না আমার বোনকে বাঁচাতে।’

আগুনের খবর শুনে মৌলভীবাজার থেকে গাড়ি ভাড়া করে ছুটে এসেছে কম্পার পরিবার। বাবা পরবানন্দ বর্মন বুক চাপড়ে কাঁদছিলেন ,‘কম্পা, মা তুই কোথায় মা। আমাদের কাছে ফিরে আয় মা। ঘটনার আগের দিন রাতে তার সঙ্গে কথা হয়। কেমন আছি জানতে চায়। চাকরির বিষয়েও কথা বলে। এখন আমি কার সাথে কথা বলবো?’

আরও পড়ুন: মেয়ে বাঁচলেও মারা গেছেন মা মিনা

বৃহস্পতিবার (৮ জুলাই) বিকেলে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের কর্ণগোপ এলাকায় হাসেম ফুড অ্যান্ড বেভারেজ লিমিটেড কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এতে ৫২ জন প্রাণ হারায়।

/মামুন/এমএম/

সম্পর্কিত বিষয়:

ঘটনাপ্রবাহ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়