ঢাকা     শনিবার   ২৯ জানুয়ারি ২০২২ ||  মাঘ ১৫ ১৪২৮ ||  ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

টেস্ট ক্রিকেটে রানও গুরুত্বপূর্ণ তাই ঝুঁকি নিয়েছি: মুমিনুল

ক্রীড়া প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২১:০৮, ৮ ডিসেম্বর ২০২১  
টেস্ট ক্রিকেটে রানও গুরুত্বপূর্ণ তাই ঝুঁকি নিয়েছি: মুমিনুল

চতুর্থ দিন শেষে নাজমুল হোসেন শান্ত বলেছিলেন, আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ে ব্যাটসম্যানদের কোনও দায় নেই। রান নিতে, বোলিং ধার কমাতে আগ্রাসী ব্যাটিং করেছেন। আজ ঢাকা টেস্ট হারের পর মুমিনুল সেই কথা পুনরায় শোনালেন। সঙ্গে যোগ করে বলেন, টেস্ট ক্রিকেটে রান করতে হলে হিসেব করে ঝুঁকি নিয়ে এগোতে হবে। ম্যাচ হারের পর বিমর্ষ মুমিনুল ব্যাখ্যা দিতে এসেছিলেন সংবাদ সম্মেলনে। তার কথা শুনেছে রাইজিংবিডি।

ব্যাটিং এতোটা হতাশাজনক কেন? আপনারাও কি হতাশ?
মুমিনুল: আমার কাছে খুবই হতাশাজনক। এটা খুব বাজে একটা দিন ছিল। কাল এক সেশনে আমরা ৭ উইকেট হারিয়ে ফেলেছি, খুব বাজে ব্যাট করেছি। এখানে অজুহাত দেওয়ার কিছু নেই। প্রথম চার ব্যাটসম্যান ওভাবে আউট হয়েছে। ওখানে ব্যাট করা খুবই কঠিন তারপরও দ্বিতীয় ইনিংসে মুশফিক ভাই, সাকিব ভাই, লিটন ভালো খেলেছে।

ভুল কোথায় ছিল?
মুমিনুল: প্রথম ইনিংসের কথা যদি বলি আমার ভুল ছিল। আমারটা সিলি মিস্টেক ছিল। আমি হয়ত তাড়াহুড়ো করে রান নেওয়া উচিত হয়নি।

বাকিরা তো মারতে গিয়েই আউট হলো ব্যাটিং অ্যাপ্রোচ ওমন ছিল কেন?
মুমিনুল: সবাই মারতে গিয়ে আউট হননি। আসলে আমি মুশফিক ভাই, লিটন সবাইকে সাপোর্ট দেব। যদি দেখেন সবাই বল বুঝে মারছিল হয়ত দুর্ভাগ্যজনকভাবে কানেক্ট হয়নি। মুশফিক ভাই স্কয়ার অব দ্য উইকেটে মারার চেষ্টা করেছিল, কানেক্ট হয়নি। এসব উইকেটে বেশি রক্ষণাত্মক খেললেও কঠিন। আলটিমেটলি আসলে আমার আউটটা অনেক বাজে ছিল। এসব জায়গায় রান না নেওয়াটা বেটার।

কিন্তু টেস্ট বাঁচানোর জন্য তো উইকেটে পড়ে থাকলেই হতো?
মুমিনুল: আপনি যে ফরম্যাটেই খেলেন না কেনও সব সময় রানটা কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ। সব সময় যদি খালি ডিফেন্সিভ খেলব ভাবি তাহলে কিন্তু কঠিন। মাঝেমাঝে ভুল বোঝাবুঝি হয়। আর মুশফিক ভাইয়ের আউট যদি দেখেন খুবই দুর্ভাগ্যজনক বলব।

মিরাজের আউট নিয়ে কি বলবেন? দুই ইনিংসে একই শটে উইকেট বিলিয়ে আসলেন? এটা কি টেস্ট ক্রিকেট?
মুমিনুল: আমার ওরকম কিছু মনে হয়নি। সাকিব ভাই আর মিরাজ যখন ব্যাট করছিল চাপটা কাটিয়ে উঠেছিল। আমার মনে হয় না ওরকম চাপ ছিল। হয়ত সিলেকশনে সমস্যা ছিল। আমার মনে হয় ও বেশি ডিফেন্সিভ ছিল। রাইট আর্ম অফ স্পিনার বল করছিল, ও যদি পজিটিভভাবে খেললে ব্যাটে লাগত।

ঘরোয়া ক্রিকেট থেকে যারা উঠে আসছে তারা প্রত্যেকেই ব্যর্থ। তাদের নিয়ে আপনার মূল্যায়ন কি?
মুমিনুল: ব্যর্থ ওরকম কেউ নাই। আপনি কার কথা বলছেন জানি না। যার কথা বলছেন আসলে এত সহজ না। যারা এসেছে তাদের সময় দিতে হবে। একটু ধৈর্য ধরেন।

ব্যাটিং নিয়ে আমরা বারবার ভুগছি। টপ অর্ডার কোনও ম্যাচে ৫০ করতে পারেনি। পরের ব্যাটসম্যানরাও ভুগছে এ জন্য। আসলে আক্রমণাত্মক ক্রিকেটই কি এর একমাত্র সমাধান?
মুমিনুল: আমার কাছে মনে হয় না কোনও রকম আক্রমণাত্মক কেউ খেলেছে। আমি আসলে আপনারদের প্রশ্ন শুনে খুব অবাক হয়ে গেছি। কেউ এগ্রেসিভ খেলেনি। মেরিট অব দ্য বল খেলতে হবে। ওরা ৩০০ করেছে। আপনি যদি খালি ডিফেন্সই করেন তাহলে চলবে না। আপনি যদি দেখেন যারা শট খেলে আউট হয়েছে তারা ঝুঁকি নিয়ে আউট হয়েছে। হয়ত আপনার কাছে লাগছে কারণ ওই সময় আউট হয়ে গিয়েছে। স্কোর শট যেগুলো সেগুলোতে রান না করলে তো আপনি রান করতেই পারবেন না। হয়ত উপরের দিকে রান করতে পারেনি। সেটা করতে পারলে নিচের দিকের জন্য সহজ হতো।

ইয়াসিন/কেআই

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়