ঢাকা, বুধবার, ৮ মাঘ ১৪২৬, ২২ জানুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

শৈশব চুরি ঠেকাতে হরিয়ানায় বন্ধ হচ্ছে কেজি স্কুল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১২-১০ ৭:৩৬:২০ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১২-১০ ৭:৩৬:২০ পিএম

ভারতের হরিয়ানা রাজ্যে বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা। অর্থাৎ বন্ধ করে দেওয়া হবে সব বেসরকারি নার্সারি বা কিন্ডারগার্টেন (কেজি) স্কুল। আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকেই এই পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী কানোয়ার পাল।

প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা বন্ধের পেছনে সরকারের যুক্তি, এই শিক্ষা ব্যবস্থায় আসলে শিশুদের শৈশব চুরি হয়ে যাচ্ছে। ভীষণ ক্ষতি হচ্ছে শিশুদের মানসিক বিকাশে। তাই শিশুরা ভর্তি হবে সরাসরি প্রথম শ্রেণিতে। তবে, খেলাধুলোর মাধ্যমে কিছু শেখার জন্য অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্র বা প্লে স্কুল রাখা যেতে পারে।

রাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছেন অনেকেই। তবে কেউ আবার তুমুল সমালোচনাও করেছেন।

শিক্ষাবিদ পবিত্র সরকার বলেন,‘ছোটদের সাধারণভাবে বেড়ে ওঠার সুযোগ দেওয়া উচিত। ছোট থেকেই লেখাপড়ার চাপের মধ্যে না দিয়ে স্বাধীনভাবে বিকশিত হওয়ার একটা সময় দরকার হয়। এই সময়টা তারা লেখাপড়ার কথা ভাববেই না। তবে সে ক্ষেত্রে প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থাকে আরও শক্তিশালী করতে হবে। এমন বন্দোবস্ত করতে হবে যাতে, প্রাথমিক স্কুলগুলিতেই খেলাধুলা ও লেখাপড়ার মধ্যে সমন্বয় সাধন হতে পারে।’

উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের সময়ে তো পাঁচ বছর বয়স হওয়ার আগে হাতেখড়িই দেওয়া হত না। কিন্তু এখনকার অভিভাবকদের মত যেন, মায়ের পেটে থেকেই শিক্ষাগ্রহণ শুরু করুক শিশুরা।’

এর সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেছেন পশ্চিবঙ্গের স্কুল সিলেবাস কমিটির চেয়ারম্যান ও যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক অভীক মজুমদার।

তিনি বলেন,‘পাঁচ বছরের কম বয়সের শিশুরা স্কুলে এসে খেলাধুলা, গান, ছবি আঁকা এ সবের মধ্যে দিয়ে অ্যাকটিভিটি বেসড লার্নিং সিস্টেমে শিখছে। এটা একেবারে শিশুদের আনন্দময় শিক্ষা। যারা শিক্ষাবিজ্ঞান মানেন না, আধুনিক শিক্ষাব্যবস্থাকে মানতে চান না তারাই হরিয়ানা সরকারের এই ব্যবস্থার পক্ষে মত দিতে পারেন’।


ঢাকা/শাহেদ