ঢাকা     বুধবার   ০৭ ডিসেম্বর ২০২২ ||  অগ্রহায়ণ ২৩ ১৪২৯ ||  ১২ জমাদিউল আউয়াল ১৪১৪

কুয়েট শিক্ষকের মৃত্যু ঘিরে রহস্য, তদন্ত ক‌মি‌টি গঠন

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:০৮, ১ ডিসেম্বর ২০২১  
কুয়েট শিক্ষকের মৃত্যু ঘিরে রহস্য, তদন্ত ক‌মি‌টি গঠন

অধ্যাপক ড. মো. সেলিম হোসেন

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) শিক্ষক অধ্যাপক ড. মো. সেলিম হোসেনের মৃত্যু ঘিরে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। অভিযোগ উঠেছে, মৃত্যুর আগে তিনি লাঞ্ছনার শিকার হয়েছিলেন। আর মানসিক চাপ থেকে তিনি হার্ট অ্যাটাক করেন। 

এ ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে কুয়েট কর্তৃপক্ষ। দ্রুত তাদের প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। 

মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) দুপুর ৩টার দিকে অধ্যাপক ড. মো. সেলিম হোসেনের মৃত্যু হয়। তিনি কুয়েটের ইলেক্ট্রিক্যাল ও ইলেক্ট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক এবং লালন শাহ হলের প্রভোস্ট ছিলেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কুয়েটের জনসংযোগ কর্মকর্তা মনোজ কুমার জানান, অধ্যাপক ড. মো. সেলিম হোসেনের মৃত্যুর ঘটনায় ড. রজিবুল আহসানকে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। দ্রুত তাদের রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে।

ড. সেলিম হোসেনের মৃত্যুতে কুয়েটের উপাচার্য অধ্যাপক ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন শোক প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা গেছে, কুয়েট ছাত্রলীগে বেশ কয়েকটি গ্রুপ রয়েছে। একটি প্রভাবশালী গ্রুপ বর্তমান কুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদমান নাহিয়ান সেজানের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

সম্প্রতি কুয়েটের লালন শাহ হলের ডিসেম্বর মাসের খাদ্য ব্যবস্থাপক (ডাইনিং ম্যানেজার) নির্বাচন নিয়ে সাধারণ সম্পাদক সাদমান নাহিয়ান সেজান প্যানেলের বিরুদ্ধে নির্বাচন প্রক্রিয়া প্রভাবিত করার প্রচেষ্টার অভিযোগ ওঠে। ওই প্যানেলের সদস্যেরা হলের প্রভোস্ট সেলিম হোসেনকে নিয়মিত হুমকি দিয়ে আসছিলেন তাদের মনোনীত প্রার্থীকে নির্বাচিত করার জন্য।

এরই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সাদমান নাহিয়ান সেজানের নেতৃত্বাধীন ছাত্রলীগের একটি গ্রুপ ক্যাম্পাসের রাস্তা থেকে ড. সেলিম হোসেনকে জেরা করা শুরু করে। পরে তাকে অনুসরণের পর তার ব্যক্তিগত কক্ষে (তড়িৎ প্রকৌশল ভবন) প্রবেশ করে। সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, তারা আনুমানিক আধা ঘণ্টা ড. সেলিম হোসেনের সঙ্গে রুদ্ধদার বৈঠক করেন।

পরে অধ্যাপক ড. সেলিম হোসেন দুপুরে খাবারের জন্য বাসায় যান। এরপর দুপুর আড়াইটার দিকে তার স্ত্রী লক্ষ্য করেন সেলিম হোসেন বাথরুম থেকে বের হচ্ছেন না। এরপর দরজা ভেঙে তাকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

শিক্ষক ও ছাত্ররা জানান, ড. সেলিম একজন সৎ ও মেধাবী শিক্ষক ছিলেন। ছাত্রবান্ধব হিসেবে তার যথেষ্ট সুনাম রয়েছে৷ অল্প বয়সে তিনি দেশের বাইরে থেকে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করে ২০২০ সালে অধ্যাপক পদোন্নতি পান৷ কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে তার সম্পৃক্ততা ছিল না।

কুয়েট শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রতিক চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, ‘ড. মো. সেলিম হোসেনের মৃত্যুতে আমরা স্তব্ধ হয়ে গেছি। সিসিটিভির ফুটেজ দেখে এ ঘটনার তদন্ত করা হবে। এরপর ব্যবস্থা নেবে প্রশাসন।’  

কুয়েট ছাত্র কল্যাণ পরিষদের পরিচালক ড. ইসমাইল সাইফুল্লাহ বলেন, এ ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাদের প্রতিবেদন সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ বিষয়ে জানতে কুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদমান নাহিয়ান সেজানকে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি ধরেননি।
 

নূরুজ্জামান/বকুল 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়